স্বাস্থ্য সেবা ১৪ মে, ২০২৩ ১২:৪৫

‘মোখা’ মোকাবিলায় প্রস্তুত ৯ হাজার পুলিশ, শুধু মাত্র এক জেলায় 

ছবি - সংগৃহীত

ছবি - সংগৃহীত

আমাদের কাগজ ডেস্ক: দুর্যোগ মোকাবিলার চট্টগ্রামে নয় হাজার পুলিশ সদস্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে। দেশে আঘাত হানতে চলেছে ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’। এদিকে এর মধ্যে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) সাত হাজার ও সারা জেলায় দুই হাজার পুলিশ সদস্য প্রস্তুত রয়েছে। সিএমপি ও জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে খোলা হয়েছে পৃথক কন্ট্রোল রুম। রবিবার (১৪ মে) সকালে সিএমপি কমিশনার কৃষ্ণপদ পদ রায় ও জেলা পুলিশ সুপার এস এম শফিউল্লাহ এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, পুলিশ সদস্য ছাড়াও সিএমপির সদর দপ্তরে ও জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে দুটি কন্ট্রোল রুম চালু রাখা হয়েছে। এ ছাড়া উপকূলীয় এলাকায় আশ্রয়কেন্দ্রে চলে যাওয়া ফাঁকা বাসা চুরি-ডাকাতি মোকাবিলায় নজরদারি জোরদার করেছে পুলিশ।

কৃষ্ণপদ রায় বলেন, মেট্রোপলিটন পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটকে দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দূর্যোগকালীন যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য ৭ হাজার অফিসার-ফোর্স প্রস্তুত আছে। পতেঙ্গা সি বিচ, পারকি বিচ, মেরিন ড্রাইভ রোডসহ বিভিন্ন দুর্যোগপ্রবণ এলাকায় মাইকিং ও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। সিএমপির এডিসি (ক্রাইম) মো. জাহাঙ্গীরের নেতৃত্বে ২৪ ঘণ্টা নিয়ন্ত্রণ কক্ষ চালু করা হয়েছে। নিয়ন্ত্রণ কক্ষের মোবাইল নম্বর সমুহ-০১৬৭৬১২৩৪৫৬, ০১৩২০০৫৭৯৮৮, ৬৩০৩৫২, ৬৩০৩৭৫ ও ৬৩৯০২২।

অন্যদিকে চট্টগ্রাম জেলার উপকূলীয় পাঁচ উপজেলার সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি কমাতে এবং নিরাপদে লোকজনকে আশ্রয় নিতে কাজ করছে জেলা পুলিশ। ৬টি উপকূলীয় থানা এলাকায় ব্যাপক মাইকিং করা হচ্ছে। একই সঙ্গে এসব এলাকায় চুরি, ছিনতাই ও ডাকাতি প্রতিরোধ করতে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে একটি জরুরি সেবা কেন্দ্র খোলা হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কবীর আহমদকে ০১৩২০-১০৭৪০২, ০১৩২০-১০৮৩৯৮, ০১৩২০-১০৮৩৯৯ ও ০২-৪১৩৫৫৫৪৯ এই চারটি নম্বর তদারকির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) এস এম শফিউল্লাহ বলেন, ঘূর্ণিঝড় সংক্রান্ত যেকোনো সমস্যায় পড়লে থানা অথবা জেলা পুলিশ কর্মকর্তাদের ফোন দেবেন। আমাদের টিম উদ্ধার তৎপরতা, জনসাধারণের চিকিৎসা সেবাসহ যেকোনো জরুরি সেবা দিতে তৎপর থাকবে। ১৭টি থানায় দায়িত্বরত এবং ব্যাকআপ হিসেবে ২ হাজার পুলিশ সদস্য প্রস্তুত রয়েছে।

মোখার প্রভাবে চট্টগ্রাম, সিলেট ও বরিশাল বিভাগে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে। অতি ভারী বর্ষণের ফলে কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও চট্টগ্রামের পাহাড়ী অঞ্চলের কোথাও কোথাও ভূমিধস হতে পারে।

রোববার (১৪ মে) আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মো. হাফিজুর রহমান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’ উত্তর ও উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে।

আমাদের কাগজ/এমটি