??????????? ২৪ নভেম্বর, ২০২২ ১০:৫০

২ বছর আগেই শ্রদ্ধা বলেছিলো ‘আমাকে খুন করে টুকরো টুকরো করবে আফতাব’

ছবি:ইন্টারনেট

ছবি:ইন্টারনেট

বিনোদন ডেস্ক : শ্রদ্ধা হত্যাকাণ্ডে এবার চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে এল। দাবি করা হল, ২০২০ সালেই প্রেমিক আফতাব আমিন পুনাওয়ালার বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে অভিযোগ জানিয়েছিলেন শ্রদ্ধা ওয়াকর। প্রকাশ্যে আসা সেই  শ্রদ্ধা নাকি পুলিশের কাছে অভিযোগ করেছিলেন, আফতাব তাঁকে খুন করার চেষ্টা করে। তাকে নাকি খুন করে টুকরো টুকরো করে ফেলে দেওয়ার হুমকি দেয় আফতাব।

প্রসঙ্গত, ২০২২ সালে শ্রদ্ধাকে সত্যি সত্যি খুন করে টুকরো টুকরো করে আফতাব।সেখানে বলেছেন, ‘আমাদের মধ্যে আর কোনো ঝগড়া নেই।’ এরপর তিনি পুলিশকে আফতাবের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ার অনুরোধ করেন। 

দিল্লি পুলিশের একটি সূত্র এনডিটিভিকে জানিয়েছে, শ্রদ্ধা ২০২০ সালের ২৩ নভেম্বর পুলিশকে অভিযোগ করেন। তাতে তিনি বলেছেন, ‘আজ সে আমাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করার চেষ্টা করেছিল এবং সে আমাকে ভয় দেখায় এবং আমাকে ব্ল্যাকমেল করে। সে বলে যে আমাকে মেরে ফেলবে, আমাকে টুকরো টুকরো করে ফেলে দেবে। ৬ মাস হয়ে গিয়েছে সে আমাকে মারছে কিন্তু পুলিশের কাছে যাওয়ার সাহস আমার ছিল না কারণ সে আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছে। ‘আমাদের মধ্যে আর কোনো ঝগড়া নেই।’ এরপর তিনি পুলিশকে আফতাবের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ার অনুরোধ করেন। 

২০২০ সালের ২৩ নভেম্বরে করা এই অভিযোগের সঙ্গে তাঁর সহকর্মী করণকে হোয়াটসঅ্যাপে বলা কথার মিল রয়েছে। ওই সময়ে তিনি করণকে তাঁর ক্ষতবিক্ষত মুখের একটি ছবিও শেয়ার করেছিলেন।  তিনি বলেছেন ‘আমি শ্রদ্ধাকে পুলিশের কাছে নিয়ে গিয়েছিলাম। তাঁর ওপর দুই-তিনবার হামলা চালিয়েছিল আফতাব। তাঁর ঘাড়ে একটি গভীর দাগ ছিল। যেন আফতাব তাঁকে শ্বাসরোধ করার চেষ্টা করেছিল। পুলিশ শ্রদ্ধাকে বাড়িতে যেতে রাজি করিয়েছিল। যদিও সেই সময় তিনি আতঙ্কিত ছিলেন।’

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একটি ডেটিং অ্যাপের মাধ্যমে ২০১৯ সালের দিকে তাঁদের পরিচয় হয়েছিল। ২০২০ সালে ‘তাঁকে ছয় মাস ধরে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হচ্ছে’ বললেও শ্রদ্ধা সম্পর্কচ্ছেদ করেননি আফতাবের সঙ্গে। বরং এ বছরের মে মাসে তাঁরা দিল্লিতে চলে গিয়েছিলেন এবং একটি ফ্ল্যাটে একসঙ্গেই থাকতেন। 

পুলিশ জানিয়েছে, ১৮ মে শ্রদ্ধা ও আফতাবের ঝগড়া হয়েছিল। ঝগড়ার সময় শ্রদ্ধার মুখ চেপে ধরেছিল আফতাব। তারপর তাঁকে খুন করেছিল বলে অভিযোগ।


আমাদের কাগজ//টিএ