বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি ২২ অক্টোবর, ২০২০ ০৪:৫৭

ঝুঁকিতে সাড়ে আট কোটি মানুষ 

শ্রমবাজারে নতুন আতঙ্ক রোবট 

টেক ডেস্ক 

বৈশ্বিক মহামারি করোনার প্রভাবে আগামী পাঁচ বছরে সাড়ে আট কোটি চাকরি চলে যাবে রোবটের দখলে। সম্প্রতি এমন তথ্যই উঠে এসেছে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের এক গবেষণায়। সংস্থাটি বলছে, কোভিড-১৯ বাস্তবতায় কর্মক্ষেত্রে যে পরিবর্তন আসছে তা সামনে বৈষম্য বাড়াবে। প্রায় তিনশ’ বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠানের ওপর বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরাম জরিপ চালিয়েছে। খবর রয়টার্সের।

বিশ্ব অর্থনেতিক ফোরামের গবেষণা বলছে, আগামী পাঁচ বছর নিজ নিজ ভূমিকাতেই থাকবেন শ্রমিকরা। এদের মধ্যে অর্ধেককেই নতুন কোনো দক্ষতা অর্জন করে নিতে হবে। ২০২৫ সাল নাগাদ নিয়োগকারীরা মানুষ এবং যন্ত্রের মধ্যে কাজ ভাগ করে দেবেন। এক কথায়, চাকরি তৈরি হচ্ছে ধীরগতিতে, কিন্তু চাকরি হারানোর ব্যাপারটি অনেক বেড়ে গেছে। কারণ বিশ্বের অসংখ্য প্রতিষ্ঠান ডেটা এন্ট্রি, অ্যাকাউন্টিং এবং প্রশাসনিক কাজে মানুষের বদলে প্রযুক্তি ব্যবহার শুরু করেছে। তবে, সুসংবাদও রয়েছে। তদারক অর্থনীতিতে নয় কোটি ৭০ লাখেরও বেশি চাকরির সুযোগ তৈরি হবে। 

ফোরাম জানিয়েছে, প্রযুক্তি শিল্পের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, কনটেন্ট নির্মাণ ইত্যাদি খাতে দেখা মিলবে এ ধরনের চাকরির। “এ ধরনের কাজের বেলায় মানুষ ব্যবস্থাপনা, পরামর্শ, সিদ্ধান্ত গ্রহণ, যুক্তি, যোগাযোগ এবং কথোপকথনে নিজেদের তুলনামূলক সবিধা বজায় রাখতে পারবেন।” – বলছে জেনেভা ভিত্তিক পর্যবেক্ষক সংস্থাটি। 

সংস্থাটি আরও জানিয়েছে, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ক্রিয়াকলাপ, ‘কাটিং এজ ডেটা’ এবং পরিবেশবান্ধব ‘গ্রিন ইকোনমি’-তে শ্রমিকদের জন্য চাকরির সুযোগ বাড়বে। প্রকৌশল, ক্লাউড কম্পিউটিং এবং পণ্য উন্নয়নে নতুন ভূমিকা চোখে পড়বে। জরিপে অন্তর্ভুক্ত ৪৩ শতাংশ ব্যবসায়ী প্রযুক্তি প্রয়োগের কারণে জনশক্তি ছাঁটাই করবে, ৪১ শতাংশ ব্যবসায়ের ঠিকাদার ব্যবহার বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে, এবং প্রযুক্তি প্রয়োগের কারণে ৩৪ শতাংশ ব্যবসায় জনশক্তি বাড়ানোর পরিকল্পনা করেছে। - উঠে এসেছে গবেষণায়।