রাজনীতি ১৪ অক্টোবর, ২০২০ ০৭:৩১

যুবলীগ নেতার মাথা ফাটালেন 'দৌড়' সালাউদ্দিনের কর্মীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা-৫ উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি প্রার্থী সালাউদ্দিন আহমেদের নেতাকর্মীদের দ্বারা অতর্কিত হামলার শিকার হয়েছেন ডিএসসিসি ৫০ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের নেতাকর্মীরা। এতে যুবলীগের নেতা মো. আবুল হাছনাত কাজলসহ অন্তত ১০ জন মারাত্মকভাবে আহত হয়েছেন। কাজলকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে এ হামলার সত্যতা অস্বীকার করেছেন সালাউদ্দিন আহমেদ। আজ বুধবার আনুমানিক দুপুর ১টার দিকে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক ইমদাদুল হক জানান, আমরা আওয়ামী লীগ প্রার্থী মনিরুল ইসলাম মনুর নির্বাচনী প্রচারণার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ৫০ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপির প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ গণসংযোগ শুরু করেন। দয়াগঞ্জ সড়কের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় বিএনপির প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ এর গণসংযোগ থেকে হঠাৎ ৫০ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের কার্যালয়ে হামলা ও ইটপাটকেল ছোড়া হয়।

তিনি বলেন, এসময় উপস্থিত যুবলীগের নেতারা প্রতিবাদ করলে তাদের মারধর ও যুবলীগের কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করা হয়। এতে ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি আরিফ হোসেন, ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সভাপতি ফকরুল ইসলাম মুরাদ, মো. জীবন, শেখ রুমান, জুয়েল হাওলাদার, জাকির হাওলাদার, কাওছার আহমেদ নিপু, মো. রাজীব, মো. জালাল ও আল আমিন গুরুতর আহত হয়।

ইদাদুল হক আরও বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণভাবে জননেত্রী শেখ হাসিনা মনোনীত ঢাকা-৫ আসনের প্রার্থী কাজী মনিরুল ইসলাম মনুর নির্বাচন পরিচালনা করে আসছি। বিএনপির প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ এর গণসংযোগ থেকে অতর্কিতভাবে ৫০ নম্বর ওয়ার্ডে যুবলীগের নির্বাচন পরিচালনা কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেছে ও কর্মীদের মারধর করেছে।

এ অভিযোগের সত্যতা জানতে চাইলে ঢাকা-৫ আসনের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সালাউদ্দিন আহমেদ আমাদের কাগজকে বলেন, আমার নেতাকর্মীরা যুবলীগের নেতাকর্মীদের উপর হামলা চালায়নি বরং যুবলীগ আমার নেতাকর্মীদের উপর হামলা চালিয়েছে। আমার জনপ্রিয়তায় ভয় পেয়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মনুর সমর্থরা আমার নামে নানা রকম অপপ্রচার চালাচ্ছে।