অর্থ ও বাণিজ্য ১৪ অক্টোবর, ২০২০ ০৫:৩২

আলুর দাম ৩০ টাকা বেঁধে দিল সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক

এক সময় লোকমুখে একটা কথা প্রচলিত ছিল আর কিছু কিনে খেতে না পারলেও আলু ভর্তা ও ডাল খেয়ে জীবন পার করতে পারবো।কিন্তু মধ্যসত্বভোগীদের কারসাজিতে আলুর বেসামাল দামে বিপাকে পরেছে জনসাধারণ। তাই এবার চালের পর এবার আলুর দাম বেঁধে দিয়েছে সরকার। তিন পর্যায়ে এই দাম নির্ধারণ করা হয়। কেজিপ্রতি খুচরা পর্যায়ে ৩০, পাইকারিতে ২৫ ও হিমাগার থেকে ২৩ টাকা। এই দামে আলু বিক্রি না করলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও ভোক্তা অধিকার কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আজ বুধবার কৃষি বিপণন অধিদপ্তর থেকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। দেশের সব জেলা প্রশাসককে এই ব্যাপারে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

সেপ্টেম্বর মাসের শেষদিকে মাঝারি ও সরু চালের পাইকারি মূল্য নির্ধারণ করে দেয় সরকার। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে চালকল মালিকদের বৈঠকে এ দর নির্ধারণ করা হয়।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসাবমতে, এই বছর এক কেজি আলু উৎপাদনের খরচ পড়েছে আট টাকা ৪০ পয়সা। আর আলু উৎপাদিত হয়েছে এক কোটি ৯ লাখ টন। সংস্থাটির হিসাবে দেশে বছরে আলুর চাহিদা ৭৭ লাখ টন। আর বীজ আলু হিসাবে আরও ২০ টন আলুর প্রয়োজন হয়।

তবে বাংলাদেশ কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের হিসাবমতে, চলতি বছর ৮৫ লাখ টন আলু উৎপাদিত হয়েছে। তাদের হিমাগারগুলোতে বর্তমানে আলু রয়েছে ৪০ লাখ টন। এর মধ্যে ১৫ লাখ টন বীজ আলু। মাসে দেশে আলুর প্রয়োজন হয় ৮ লাখ টন।

কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ইউসুফ গণমাধ্যমকে বলেন, কৃষকেরা এ বছর ১০ থেকে ১২ টাকা কেজি ধরে আলু বিক্রি করেছে। কয়েক হাত ঘুরে হিমাগারে রাখার খরচসহ হিসাব কষলে তা কোনোভাবেই ২০ টাকার বেশি হয় না। তারপরেও হিমাগার থেকে ২৩ টাকা কেজি ধরে আলু বিক্রি করতে বলা হয়েছে। পাইকারি ও খুচরা পর্যায়েও যথেষ্ট যৌক্তিক মুনাফা ধরেই দাম বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

তবে হিমাগার সমিতি থেকে বলা হয়েছে, চালকলগুলোতে রাখা চালের মালিক সংশ্লিষ্ট কলমালিকেরা। কিন্তু হিমাগারের রাখা আলুর মালিক অন্যরা, তাঁরা শুধু ভাড়া পান। ফলে হিমাগার মালিকেরা আলু বিক্রির ক্ষমতাই রাখেন না।