সোশ্যাল মিডিয়া ২ আগস্ট, ২০১৯ ১১:১০

ফেরীতে তিতাস মৃত্যুর ঘটনায় সেই যুগ্ম সচিবের ভাইয়ের স্ট্যাটাস

ডেস্ক রিপোর্টঃ 

সরকারের  আইসিটি ডিভিশনের এটুআই প্রকল্পের যুগ্ম সচিব আবদুস সবুর মণ্ডলের গাড়ির অপেক্ষায় ফেরি পার হতে তিন ঘণ্টা দেরি হওয়ায় মূমুর্ষ অবস্থায় বাইক দুর্ঘটনায় গুরুত্বর অহত কিশোর তিতাস ঘোষ অ্যাম্বুলেন্সেই প্রাণ হারায়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সারাদেশে ভিআইপি সংস্কৃতির বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিবাদের ঝড় উঠে। এরই ধারাবাহিকতায় এর প্রতিবাদ ও ন্যায়বিচারের দাবিতে সামিল হন স্বয়ং যুগ্ম সচিব আবদুস সবুর মন্ডলের ছোট ভাই আবু সায়েদ মন্ডল সেলিম। তার ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো.....  

"ভাই, আপনার উদ্দেশ্যে লিখছি…

১৯৮২ সাল থেকে আপনি পড়াশোনা ও চাকুরির খাতিরে বাড়ির বাইরে অবস্থান করছেন। অনেক ভাই-বোন এর আপনি বড় ভাই হওয়ায় বাবা সবসময় আপনাকে ট্রেনের ইঞ্জিন ভাবতো, আমরা ভাই-বোনরা ট্রেনের বগি। আপনার দীর্ঘ চাকুরি জীবনে সবসময় শুনে আসলাম নাই, নাই, নাই। অথচ আপনারা দুজনেই চাকুরি করেন। বাবার সমস্ত জমি বন্ধক; তার মৃত্যুর চার বছর পরেও আপনি আমাদের জমি উদ্ধার করে দিতে পারলেন না। বাড়ী আসলে আপনার নীতিবাক্য শুনেই শুধু সময় কাটে। দেশপ্রেম মানবপ্রেম এগুলো ছাড়া আপনার কোন প্রেম নেই। বাবা বেঁচে থাকতেও অর্থকষ্টে ভুগেছেন এবং মা বেঁচে থেকেও চিকিৎসার খরচটাও ঠিকমত পাচ্ছেন না। তিনটি ভাই বেকার অবস্থায় বাড়িতে বসে আছে; আপনি তাদের একটি মুদীর দোকানও করে দিতে পারেন নি। 
 

বিগত দু’একদিন থেকে আমরা পরিবারের কেউ বাড়ির বাহিরে বের হতে পারছি না। পত্রিকায়, টেলিভিশন ও ফেসবুকে গোটা জাতি আপনাকে ধিক্কার দিচ্ছে। বাবা মারা যেয়ে ভালই হয়েছে কারণ এ কষ্ট তিনি সহ্য করতে পারতেন না। যেখানে চাকুরি করেছেন সেখানকার লোকজনই আপনার আপনজন ছিল। শুধু পর ছিলাম আমরা বাবা-মা, ভাই-বোন, আত্মীয়স্বজন এবং আপনার পরিবার। এখন ফেসবুকে বিভিন্ন জনের বিরূপ আর বিকৃত মন্তব্যের পাশাপাশি আমার মনেও কিছু প্রশ্ন আসে- ১) সত্যি কি আপনি ফেরী অপেক্ষা করতে বলেছিলেন; ২) আপনি নিজেকে ভিআইপি দাবী করেছেন কি; ৩) ৩ ঘণ্টা ধরে ফেরী অপেক্ষা করছে এটা জানতেন কি না; ৪) ঐ ফেরীতে একজন মুমূর্ষু রোগী আছে এটি জানতেন কি; ৫) বিলম্বতার কারণে ফেরী ছেড়ে দেওয়া দরকার আপনাকে বলেছিল কি না; যদি প্রশ্নগুলোর একটিরও উত্তর হ্যাঁ হয় তাহলে ঐ নিষ্পাপ শিশুটির মৃত্যুর জন্য আপনি দায়ী। এক্ষেত্রে আমার একটি অনুরোধ- বাবার কবরের পাশে আর কখনও আপনি আসবেন না। যদি প্রশ্নের উত্তর সবগুলো না হয় তবে মানুষের জন্য এতদিন যে কল্যাণ করেছেন সেগুলো মূল্যহীন। আপনার দ্বারা আমরা সবাই পারিবারিকভাবে চরম বঞ্চিত ও অবহেলিত হচ্ছি। 
 

মহামান্য হাইকোর্ট যদি আপনাকে দোষী সাব্যস্ত করে টাকা দিতে বলে তাহলে মৃত বাবার কসম পৈত্রিক সম্পত্তি বিক্রি করতে আপনি আসবেন না। আপনার জন্য অনেকে ভাল মন্তব্য করেছে, অবশ্যই তারা আপনার ভাল দিকগুলো দেখেছে, কিন্তু আমরা যারা ছোট ভাই-বোন শুধু বড় ভাই হিসেবে দেখেছি, উল্লেখযোগ্য কোনো আর্থিক সুবিধা পাইনি, এখনও আমরা অতি সাধারণ পরিবারের মত জীবন যাপন করছি।
 

যদি নির্দোষ প্রমাণিত হন তাহলে দ্রুত বাড়ি ফিরে আসুন। জাতি গঠন করার চেয়ে পরিবার গঠন করা জরুরী। চাকুরি ছেড়ে দিয়ে বাবার রেখে যাওয়া জমিতে হাল চাষ করে অন্তত পরবর্তী প্রজন্মকে আর্থিক কষ্ট থেকে মুক্তি দিন। আমরা সব ভাই বোন মিলে বাবার স্বপ্ন পূরণ করে সুখী পরিবার গঠন করি। আল্লাহ সহায় হলে কারো কোনো সহযোগিতা প্রয়োজন নেই। 
 

অনেকে আপনার সততার প্রশ্ন তুলেছেন তাদেরকে অনুরোধ করবো তিল তিল করে গড়ে তোলা আমার ভাইয়ের সমৃদ্ধ জীবনকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে কলংকিত করবেন না। সরকারের কাছে আকুল আবেদন যদি আমার ভাই দোষী প্রমাণিত হয় যে শাস্তি দিবেন আমরা পারিবারিকভাবে তা মেনে নিবো। কিন্তু যদি নির্দোষ প্রমাণিত হয় তবে তাঁর হারানো সম্মান ফিরিয়ে দিয়ে পারিবারিক মর্যাদা সমুন্নত রেখে গোটা জাতিকে জানানো হোক।"