আন্তর্জাতিক ২৭ মার্চ, ২০২১ ০২:৫৫

শুরু হলো শিশুদের ওপর ফাইজার ভ্যাকসিনের পরীক্ষা

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক

মার্কিন ফাইজার ও জার্মানির বায়োএনটেক উদ্ভাবিত করোনা ভ্যাকসিন ১২ বছরের কম বয়সী শিশুদের ওপর পরীক্ষা করা শুরু করেছে। তাদের আশা, ভ্যাকসিন দেওয়ার বয়সসীমা ২০২২ সাল পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। ফাইজারের মুখপাত্র শ্যারন কাস্টিলো জানান, বুধবার প্রথম পর্যায়ের পরীক্ষার জন্য স্বেচ্ছাসেবীদের প্রথম ইনজেকশন দেওয়া হয়েছে।

গত সপ্তাহে মডার্নাও শিশুদের ওপর তাদের ভ্যাকসিনের পরীক্ষা শুরুর কথা জানিয়েছে। এটি একটি পেডিয়াট্রিক ট্রায়াল যা ৬ মাস বয়সী শিশুদের দেওয়া হবে। বর্তমানে শুধু ফাইজার-বায়োএনটেক ভ্যাকসিনটি যুক্তরাষ্ট্রে ১৬ এবং ১৭-বছরের শিশুদের দেওয়া হচ্ছে। মডার্নার ভ্যাকসিন ১৮ বছর বা তার বেশি বয়সীদের দেওয়া হচ্ছে। তবে এখনও ছোট বাচ্চাদের জন্য কোনও ভ্যাকসিন অনুমোদিত হয়নি।

ফাইজার-বায়োএনটেক পরবর্তী সময়ে তরুণদের মধ্যে অ্যান্টিবডি স্তর পরিমাপ করে এই ট্রায়ালটি প্রসারিত করার পরিকল্পনা করেছে। ভ্যাকসিন দ্বারা নাগরিকদের সুরক্ষা, সহনশীলতা এবং প্রতিরোধ ক্ষমতা পরীক্ষা করবে বলে গেছে।

কাস্টিলো বলেন, ফাইজার ১২ থেকে ১৫ বছর বয়সের শিশুদের মধ্যে এই ভ্যাকসিন পরীক্ষা করছে। ২০২১ সালের দ্বিতীয়ার্ধে এই ট্রায়ালের আশানুরূপ রিপোর্ট পাওয়া যাবে।

ডিসেম্বরের শেষের দিকে ফাইজার-বায়োএনটেক করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনে অনুমোদন দিয়েছিল ইউরোপীয় ইউনিয়নের ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থা । তারা জানায়, এই ভ্যাকসিন ব্রিটেনে পাওয়া করোনা ভাইরাসের নতুন স্ট্রেনের বিরুদ্ধে কাজ করবে না এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি৷ তারপর কয়েক দিনের মধ্যেই ইউরোপীয় ইউনিয়নের ২৭টি দেশ জুড়ে ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হয়। ২০২১ সালকে সুরক্ষিত রাখতে ফাইজার ভ্যাকসিন ব্যবহারের জরুরিকালীন অনুমোদন দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।