অর্থ ও বাণিজ্য ১৪ জানুয়ারি, ২০২১ ০৪:২০

ই-কমার্স হতে পারে মূল হাতিয়ার: মোস্তফা জব্বার

মোস্তফা জব্বার

মোস্তফা জব্বার

ডেস্ক রিপোর্ট

করোনাকালে যখন বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হতে থাকে তখন ব্যবসার নতুন প্লাটফর্ম হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে ই-কমার্স লকডাউনে যখন সব অচল ঠিক তখন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলো মানুষের দুয়ারে পৌঁছে দিয়েছে খাবার,ওষুধসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য। করোনাকালে (ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত) দেশীয় ই-কমার্সে ১৬ হাজার কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। বর্তমানে এ ধরনের সেবা কারও কাছেই অপরিচিত নয়

ই-কমার্সের এই প্রবৃদ্ধির রেশ ধরেই করোনা সংক্রমণের মাঝেও আসতে থাকে নতুন নতুন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান, যা এখনও অব্যাহত আছে। নতুন আসা ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে— সেরাবাংলা৬৪ ডট কম, সেলেক্সট্রা ডট কম ডট বিডি, বি৭১বিডি ডট কম, ধামাকা শপিং, আলিশামার্ট ডট কম ইত্যাদি

A

এ বিষয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘আজ থেকে ১০ বছর আগে বলেছিলাম, আগামীতে প্রচলিত ব্যবসা থাকবে না। প্রচলিত ব্যবসা ডিজিটাল মাধ্যমে রূপান্তর হবে। এটাই ই-কমার্স। টুজি থেকে থ্রি-জি, তারপর ফোর-জিতে আমরা পৌঁছেছি। এরপরে ফাইভ-জিতে যাবো। নতুন সভ্যতা আসছে। সেই সভ্যতার সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে হবে। ই-কমার্স হতে পারে মূল হাতিয়ার। সবকিছু বদলে যাবে। বিপণন, বিক্রি সবকিছু।’ তিনি মনে করেন, ই-কমার্সে ভালো করতে হলে সেই দেশকে আগে বুঝতে হবে। আলিবাবা এভাবেই গ্রো করেছে। দেশের ক্রেতাদের মানসিকতা, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য— যে যত ভালোভাবে বুঝতে পারবে, সেই প্রতিষ্ঠান ই-কমার্সে ভালো করবে। তিনি জানান, ই-কমার্সে কৃষিভিত্তিক ও কৃষিজাত পণ্যের আধিক্য দেখা যাচ্ছে। এটা ভালো লক্ষণ। গ্যাজেটসও এগিয়ে যাচ্ছে ই-কমার্সে। আমরা এখন প্রযুক্তিপণ্যের উৎপাদক দেশও। ফলে সবদিক দিয়ে মনে হয়েছে, বাংলাদেশি ই-কমার্সগুলো এ খাতে বেশি ভালো করবে। দেশে ই-কমার্সের উত্থান এবং বড় বড় কোম্পানির এগিয়ে আসা দেখে মন্ত্রী বলেন, ‘আগামীতে ই-কমার্সের শো-রুমই হবে ইন্টারনেট। গোডাউন বলে কিছু থাকবে না।’

ই-কমার্সে আগমন প্রসঙ্গে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান বি৭১বিডি ডট কমের প্রধান নির্বাহী মো. মনিরুজ্জামান মৃধা বলেন, ‘দেশে তথ্য প্রযুক্তির সুবিধা শহর থেকে গ্রাম পর্যন্ত বিস্তৃত হওয়ায় ই-কমার্স সম্প্রসারণের সুযোগ তৈরি হয়েছে। অনলাইন শপে ক্রেতা ও বিক্রেতার মাঝে কোনও মধ্যস্বত্বভোগী নেই। এ কারণে ই-কমার্স নির্ভর আগামী গড়ার প্রত্যয়ে স্মার্ট জীবনের লক্ষ্য হিসেবে ভবিষ্যতের ক্রেতারা ই-কমার্সকে বেছে নেবেন। এজন্যই ই-কমার্সে আসা

তিনি বলেন, ‘ই-কমার্স নিয়ে দিন দিন মানুষের আগ্রহ বাড়ছে। সে আগ্রহই মূলত একটি ই-কমার্সের মূল উপজীব্য। তাই প্রতিযোগিতার ভিড়ে পণ্যের দাম, মান, পণ্যের বিক্রয় পরবর্তী সেবা নিশ্চিত করা, ক্রেতাদের ভালো ভালো রিভিউ এবং সময়ে সময়ে ক্রেতাদের বিশেষ সুবিধার কথা ভেবে পণ্যের ওপর বিশেষ ছাড় দেওয়ার মাধ্যমে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করাই হবে আমাদের প্রতিষ্ঠানের মূল হাতিয়ার ও কৌশল।’

ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ই-ক্যাব) সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুল ওয়াহেদ তমাল বলেন, ‘গত বছর দেশে ই-কমার্সের প্রবৃদ্ধি হয়েছে দ্বিগুণেরও বেশি। বর্তমানে প্রতিদিন ই-কমার্সে অর্ডার পড়ছে এক লাখ ২০ হাজার থেকে এক লাখ ৫০ হাজারের মতো। এরমধ্যে গ্রোসারি বেশি। এর পরেই রয়েছে ইলেক্ট্রনিক আইটেম ও গ্যাজেটস।’ তিনি আরও জানান, ই-ক্যাবের বর্তমান সদস্য সংখ্যা প্রায় দেড় হাজারের মতো। ফেসবুক নির্ভর (এফ কমার্স) ই-কমার্স পেজের সংখ্যা লাখ ছাড়িয়েছে বলে তার ধারণা

ই-ক্যাবের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, ‘নতুন নতুন কোম্পানি ই-কমার্সে আসছে। আমরা স্বাগতম জানাই। উদ্যোক্তা তৈরি হচ্ছে, এটা ভালো দিক ঢাকার বাইরেও ই-কমার্স তৈরি হচ্ছে। সবাই প্রতিষ্ঠা পাক, দাঁড়িয়ে যাক এটাই চাই।’ তবে সবাইকে নিয়ম মানার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ই-কমার্স চালুর আগে যেন উদ্যোক্তারা ট্রেড লাইসেন্স, টিআইএন সার্টিফিকেট ও ই-ক্যাবের সদস্য পদ নিয়ে বাজারে নামেন। তাহলে ক্রেতাদের আস্থা অর্জন করা যাবে সহজে।’


আরো খবর

post

সূচকের সঙ্গে কমেছে লেনদেন

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১
post

ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১
post
post
post

বিশাল পতনে স্বর্ণবাজার

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১
post