জাতীয় ১ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৬:৩৫

চার মাস সাঁতার শিখে পুলিশ কর্মকর্তার বাংলা চ্যানেল পাড়ি

নিজস্ব প্রতিবেদক

মাত্র চার মাস সাঁতার শিখে বঙ্গোপসাগরের বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তা মিশু বিশ্বাস। এত অল্প সময়ে সাঁতার শিখে এর আগে কেউ বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়েছেন-এমন তথ্যও জানাতে পারেনি আয়োজক সংস্থা।

মিশু বিশ্বাস ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) রমনা বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার। তিনি ছয় ঘণ্টা ২৩ মিনিটে বাংলা চ্যানেলের ১৬.১ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়েছেন, যা রীতিমতো অবাক করেছে আয়োজকদের। বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের প্রথম কর্মকর্তা হিসেবে তিনি এই কীর্তি গড়েছেন।

ষড়জ অ্যাডভেঞ্চার ও এক্সট্রিম বাংলা ১৫ বছর ধরে বাংলা চ্যানেলে সাঁতারের আয়োজন করে আসছে। গতকাল সোমবার অনুষ্ঠিত এই সাঁতারে অংশগ্রহণ করে মোট ৪৩ জন। তিনজন বাদে অর্থাৎ ৪০ জন চ্যানেলটি পাড়ি দিতে পারেন।

ওই ৪০ জনের মধ্যে আরেকজন ডিএমপির মতিঝিল ট্রাফিক বিভাগের রামপুরা জোনের পুলিশ সার্জেন্ট সোহেল রাশেদ। তিনি চ্যানেলটি পাড়ি দেন পাঁচ ঘণ্টা ৫৯ মিনিটে।

সোহেল রাশেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি প্রায় চার বছর ধরে নিয়মিত সাঁতার কাটি। আর স্যার (মিশু বিশ্বাস) মাত্র চার মাস শিখে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিলেন, যা অবিশাস্য। চার মাস সাঁতার শিখে কেউ সাহসই করে না সাগরে নামতে। আমি নিজেও সাহস করিনি। বাংলাদেশ পুলিশের কেউ এর আগে কখনো এই সাঁতারে অংশগ্রহণ করেনি। এবারই প্রথম আমরা দুজন অংশ নিয়ে দুজনই পাড়ি দিতে সক্ষম হয়েছি।

মিশু বিশ্বাস সাংবাদিকদের বলেন, ‘এক চমৎকার অভিজ্ঞতা এটি। মাত্র চার মাস সাঁতার শিখেছি। এর আগে পানিতে নামতেই আমার ভয় করত। আমার খুব ভালো লাগছে সিভিল সার্ভিসের প্রথম কর্মকর্তা হিসেবে এই চ্যানেল পাড়ি দেওয়ায়। এটা আমার জন্য খুবই উৎসাহের ব্যাপার। আগামীতে আরো ভালো সাঁতার শিখতে এটি আমার জন্য অনুপ্রেরণাও বটে।’

সোমবার সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে সাঁতার শুরু করেন মিশু বিশ্বাস। ১৬.১ কিলোমিটার সাঁতরে বিকেল ৩টা ৪৮ মিনিটে তিনি সেন্ট মার্টিন দ্বীপে পৌঁছান। একই সময়ে সাঁতার শুরু করে সোহেল রাশেদ ৩টা ২৪ মিনিটে সেন্ট মার্টিন দ্বীপে পৌঁছান।

এ ছাড়া একই সময়ে সাঁতার শুরু করে প্রথম হয়েছে বগুড়ার সুবিল উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র ১৩ বছর ছয় মাস বয়সী রাব্বি রহমান। সেন্ট মার্টিন দ্বীপের জেটিতে পৌঁছাতে তার সময় লাগে তিন ঘণ্টা ২০ মিনিট।

তিন ঘণ্টা ৩১ মিনিট সময় নিয়ে দ্বিতীয় হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ বিভাগের ছাত্র মো. সাইফুল ইসলাম। তিনি এ নিয়ে তিনবার বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিলেন। তিন ঘণ্টা ৩৫ মিনিট সময় নিয়ে তৃতীয় হন মাদারীপুর জেলার সাঁতারু সুজা মোল্লা।

জানা গেছে, ২০২১ সালে মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিতব্য আয়রন ম্যান প্রতিযোগিতায় অংশ নেবেন পুলিশ কর্মকর্তা মিশু বিশ্বাস। এর আগে ২০১৯ সালের নভেম্বরে সিঙ্গাপুর ও ডিসেম্বরে থাইল্যান্ডে অনুষ্ঠিত হাফ ম্যারাথনে অংশ নেন তিনি। এ ছাড়া তিনি গত জানুয়ারিতে কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত মেরিন ড্রাইভ ৫০ কিলোমিটার আল্ট্রা ম্যারাথনে অংশ নিয়ে সফলভাবে দৌড় সম্পন্ন করেন।